'নায়িকাদের বহ নাটক, জানতেন সুশান্ত! তাই এই বুমেরাংটা...'

সুশান্ত মানেই শুধুমাত্র মনোরঞ্জন। এর আগেই সুশান্তের সঙ্গে বেশ কিছু মজার ভিডিয়ো শেয়ার করেছেন স্বস্তিকা। এবার গ্যালারি ঘেঁটে শেয়ার করলেন এই বুমেরাংটি 

আর মাত্র তিনদিনের অপেক্ষা। মুক্তি পাবে মুকেশ ছাবড়া পরিচালিত সুশান্ত সিং রাজপুতের শেষ ছবি দিল বেচারা। এই ছবির ট্রেলার মুক্তির সাথে সাথে সুশান্তের অন্যান্ন ছবির সমস্ত ট্রেলার এর রেকর্ড ভেঙ্গে ছিল। এমনকী সকলের মনে গেঁথে গিয়েছে এই সিনেমার গানও। কিজি আর ম্যানির রোম্যান্সে চোখ জুড়িয়েছে দর্শকের। হবে নাই বা কেন! এই সিনেমার সঙ্গে জড়িয়ে আছেন সুশান্ত। জড়িয়ে আছে অজস্র স্মৃতি। সুশান্তের সঙ্গে এই সিনেমায় অভিনয় করেছেন স্বস্তিকা মুখোপাধ্যায়। কিজি বাসুর মায়ের চরিত্রে। নিজের ঝাঁপি থেকে এক এক দিন সুন্দর কিছু মুহূর্ত সবার জন্য শেয়ার করছেন তিনি। মঙ্গলবার তিনি সুশান্তের একটি বুমেরাং শেয়ার করে লিখলেন, 'এখন শুধুই উত্তেজনা ভাই। তবে এই ছবির শ্যুটিং শুরু হওয়ার আগে থেকেই আমরা উত্তেজনায় ফুটছিলাম। তারপর ফোনে এই বুমেরাংটি খুঁজে পেলাম।

প্রথমে দেখে একচোট খুব হেসে নিলাম। হিরোইনরা ক্যামেরার পিছনে কীভাবে নাটক করে তাই সুশান্ত আমাদের নকল করে দেখাচ্ছিল। আর আমরা সবাই হেসেই যাচ্ছিলাম'।
সুশান্ত মানেই হ্যাপি পিল একটা আগেও লিখেছেন স্বস্তিকা। সারাক্ষণ সবাইকে হাসাচ্ছেন, এক মুহূর্তের জন্যও মন খারাপ করে থাকতে দিতেন না। কোনও কিছু নিয়ে বেশি চিন্তা করলে বলতেন, একদম টেনশন না নিতে। সব ঠিক হয়ে যাবে। এছাড়াও শ্যুটিং এ সারাক্ষণই মজা করে যাচ্ছেন। তাই সুশান্তের শুধু ওই হাসিমুখটাই মনে রাখতে চান স্বস্তিকা। দিল বেচারার সেট থেকে বেশ কিছু ছবি ভিডিয়ো সবার জন্য সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করেছেন তিনি। সুশান্ত আর সঞ্জনার জন্য লিখেছেন দীর্ঘ খোলা চিঠি।

এই সিনেমা তাঁকে অনেক কিছু দিয়েছে। ভেতর থেকে তাঁর অভিনয় নিংড়ে বের করে আনতে সাহায্য করেছে টিমের সকলেই। অভিনেত্রী সঞ্জনা সাংঘি তাঁর সহকর্মী থেকে কীভাবে মেয়ে হয়ে উঠেছেন তা বুঝতে পারেননি তিনিও। পরিবারের বাইরে আরও একটা পরিবার তৈরি হয়েছে। বুঝতে পেরেছেন টিম ওয়ার্কের অর্থ।

সব মিলিয়ে এই সিনেমায় অভিনয়ের সুযোগ করে দেওয়ার জন্য তিনি কৃতজ্ঞ পরিচালক মুকেশ ছাবড়ার কাছে। এই সিনেমা তাঁকে দিয়েছে অনেক স্মৃতি। তাই ট্রেলার দেখতে গিয়ে কখনও হেসেছেন, কখনও ভিজেছে চোখের কোণ।